আজ : শনিবার, ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এমপি ও তার কন্যার উদ্যোগে রাজবাড়ীতে ১০ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য বিতরণ চলছে


প্রতিবেদক
জনতার মেইল.ডটকম

প্রকাশিত: ৩:৩৫ অপরাহ্ণ ,৭ এপ্রিল, ২০২০ | আপডেট: ১০:১১ অপরাহ্ণ ,৮ এপ্রিল, ২০২০
এমপি ও তার কন্যার উদ্যোগে রাজবাড়ীতে ১০ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য বিতরণ চলছে

রাজবাড়ী প্রতিনিধি।। প্রানঘাতি করোনা ইস্যুতে কর্মহীন হয়ে পড়া রাজবাড়ী ও গোয়ালন্দ পৌরসভাসহ রাজবাড়ী সদর এবং গেয়ালন্দ উপজেলার ১৮ টি ইউনিয়নের ১০ হাজার দরিদ্র পরিবারকে গত সপ্তাহ আগে খাদ্য সহযোগিতা দেওয়ার ঘোষনা দিয়েছিলেন- সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ও রাজবাড়ী-১ আসনের এমপি আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী।

তারই ধারাবাহিকতায় আজ দ্বিতীয় দিন ৭ এপ্রিল-২০২০ মঙ্গলবার করোনাভাইরাস রোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে- রাজবাড়ী সদর উপজেলার শ্রীপুর লজ্জাতুল হাফিজিয়া মাদ্রাসা মাঠে, পাচুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদে, বরাট ইউনিয়নে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মেসের আলীর বাড়ী ও দাদশী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে উপস্থিত থাকা অসহায়, দরিদ্র ও দিন মজুরদের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন রাজবাড়ী-১ আসনের এমপি ও সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলীর ও তার একমাত্র কন্যা জেলা যুব মহিলা লীগের নেত্রী কনিজ ফাতেমা চৈতী।

রাজবাড়ী-১ আসনের এমপি ও সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলীর ও তার একমাত্র কন্যা জেলা যুব মহিলালীগের নেত্রী কনিজ ফাতেমা চৈতীর নিজস্ব অর্থায়ানে- এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

পবিত্র শবে বরাত উপলক্ষে- বিতরণকৃত খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে- আটা, চিনি, সুজি, গরম মশলা, কিসমিসসহ অন্যান্য উপকরণ।

খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন- রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগ নেতা এ্যাড. রফিকুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা এস.এম নওয়াব আলী, ইঞ্জিনিয়ার আমজাদ হোসেন, রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা স্বপন কুমার মজুমদার, পাঁচুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান কাজী আলমগীর হোসেন, বরাট ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান মেসের আলী, দাদসী ইউনিয় আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ রমজান আলী, সাঃ সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেনসহ জেলা আওয়ামিলীগ ও যুব মহিলা লীগের নেতা-কর্মিবৃন্দ প্রমূখ।

খাদ্য সামগ্রীর বিতরণকালে ভিন্ন ভিন্ন স্থানে কয়েকজন বক্তব্য রাখেন।

সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ও রাজবাড়ী-১ আসনের এমপি কাজী কেরামত আলী বলেন- সরকারী সহযোগিতার পাশাপাশি আমার নিজস্ব উদ্যোগে এসব খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করছি।আমার নির্বাচনী এলাকার মানুয়েরা যাতে খাদ্যাভাবে না থাকে সে কারণেই এ উদ্যোগ নিয়েছি, তাছাড়াও জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশেমতাবেক কাজ করে যাচ্ছি। তিনি আরো বলেন, করোনা ভাইরাস রোধে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা মতে সকলকে ঘরে থাকতে হবে, মুখে মাস্ক পড়াসহ সামাজিক দুরত্ব মেনে চলতে হবে।একথা বেশি বেশি করে প্রচার করবেন, যাতে সবাই সচেতন হয়।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা স্বপন কুমার মজুমদার বলেন- আপনার বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে দেখেছে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হওয়ায় বিশ্ব কি ভয়াবহতার মধ্যে আছে! এই বিপদের দিনে যারাই একায় পারি দিচ্ছেন তারাই সময়ের সাহসী সন্তান বলে আমি মনে করি।আমাদের এমপি মহোদয় ৫ বার নির্বাচিত প্রতিনিধি, ইনি যে অত্যান্ত জনপ্রিয় এ কথা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা।এমপি মহোদয় যে আপনাদেরকে ভালবাসেন তার উদাহরণ হলো তার একমাত্র আদরের কন্যা তাকে সাথে নিয়ে আসছে, এটা ভাবতে হবে। আপনারা হয়তো এই করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা বুঝতে পারছেননা, কিন্ত সচেন জনগোষ্ঠি মাত্রই বুঝতে পারতেছে।আমাদের এমপি মহোদয় ও তার কন্যা বুঝতে পারতেছে। আসলে তার পরেও. আপনাদেরকে ভালবাসে বোলেই তারা কিছু অনুদান নিয়ে আপনাদের মাঝে আসছে। অনুদান বড় বিষয় নয়, এমপি সাহেব বিপদে-আপদে আপনাদের পাশে ছিল এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।আপনারা ভবিষ্যতে কাকে নেতা নির্বাচিত করবেন? এটা বলার বিষয়না।বিষয় হলো এই দূর্দিনে বিপদের সময় আপনাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে, অঅপনাদের শান্তনা দেওয়ার জন্য আপনাদেরকে সাহস দেওয়ার জন্য, আপনাদের শান্তি দেওয়ার জন্য। তিনি আরো বলেন- আপনাদের একটা রিকোয়েষ্ট করছি, আপনার সাস্থ্য বিধি মেনে চলবেন, সামাজিক দুরুত্ব বজায় রেখে চলবেন, মাস্ক ব্যাবহার করবেন আর শাবান দিয়ে বার বার হাত ধুবেন।এই মহামারি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য যার যার ধর্মিয় বিধান অনুযায়ি ইবাদত বন্দেগি করবেন, বেশি বেশি করে আল্লাহর কাছে দোয়া করবেন।

আওয়ামীলীগ নেতা এস.এম নওয়াব আলী বলেন- করোনাভাইরাস প্রতিরোধ দেশে লক ডাউন চলছে। বহু এমপি আছে তারা জীবনের মায়ায় হোম কোয়ারেন্টাইনে বসে আছেন। এই বিপদের দিনে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যে ব্যাক্তি যে লোক সাহায্য দেওয়ার জন্য আজকে রাজবাড়ী সদর ও গোয়ালন্দ উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের সাধারন মানুষের মধ্যে আসতে পারেন, আপনারা একবার ভাবুন তারা কত ভাল মনের অধিকারী হতে পারেন? সেই কাজী কোরমত আলী ও তার কন্যা চৈতী আমাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছেন। তিনি আরো বলেন- আপনাদের কাছে আমার অনুরোধ থাকলো, আজকে এই বিপদের দিনে যেই নেতা মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে আপনাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছে, এই রাজবাড়ী জেলার সেই একমাত্র সর্বশ্রেষ্ঠ নেতা হিসাবে আমরা কাজী কেরামত আলীর পাশে ছিলাম, আছি, আজিবন থাকব, এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত থাকব ইনশাল্লাহ। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।

জেলা আওয়ামীলীগ নেতা ইঞ্জিনিয়ার আমজাদ হোসেন বলেন- মহামারী করোনাভাইরাস প্রতিরোধ বর্তমান সময়ে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে আমাদের চলতে হবে আমাদের বাঁচার জন্য।দেশের এই ক্লান্তিলেগ্নে যার যার জায়গা থেকে কাজ করতে জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের এমপি-মন্ত্রীদের নির্দেশ দিয়েছেন, তারেই ধারাবাহিকতায় জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ বাস্তবায়নের জন্য এই ঝুকি মূহুর্তে মৃত্যুর পরোয়ানা হাতের মুঠোয় নিয়ে সহযোগীতা করার জন্য আপনাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন রাজবাড়ীবাসীর প্রানের নেতা এমপি কাজী কেরামত আলী তার একমাত্র কন্যা কানিজ ফাতেমা চৈতী।এই জীবন ঝুকির সন্ধিক্ষনে আপনাদের পাশে কারা আছে আর ভবিষ্যতে কারা থাকবে, তা ভেবে দেখবেন আপনার? তিনি আরো বলেন- এমপি মহোদয়ের একমাত্র কন্য কানিজ ফাতেমা চৈতী যুব মহিলা লীগের রাজবাড়ীতে হাল ধরতে চেয়েছেন আশা করি আল্লাহ যেন তার মনের আশা পূর্ন করেন।

Comments

comments