আজ : রবিবার, ২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পরিবর্তনের হাওয়া বইছে দৌলতদিয়ায় ও দেবগ্রামে ধারাবাহীকতার আভাস


প্রতিবেদক
জনতার মেইল.ডটকম

প্রকাশিত: ১০:৩৭ অপরাহ্ণ ,২১ জুলাই, ২০১৯ | আপডেট: ১১:৫১ অপরাহ্ণ ,২২ জুলাই, ২০১৯
পরিবর্তনের হাওয়া বইছে দৌলতদিয়ায় ও দেবগ্রামে ধারাবাহীকতার আভাস

উজ্জ্বল চক্রবর্ত্তী-স্টাফ রিপোর্টার।। নির্ধারিত সময়ের প্রায় ৩ বছর পর- আগামী ২৫ জুলাই-১৯ বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। উভয় ইউনিয়ন নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রার্থীরা এখন প্রচার প্রচারনায় ব্যাস্ত সময় পার করছেন। প্রতিদিন কাক ডাকা ভোর থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত এ দুই ইউপির ৫ জন চেয়ানম্যান এবং ৮০ জন ওয়ার্ড (পুরুষ মেম্বর) ও সংরতি ওয়ার্ড (মহিলা মেম্বর) সদস্যরা ভোটাদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন।

নদী ভাঙ্গনের সীমানা জটিলতায় দীর্ঘ ৮ বছর পর এবং নির্ধারিত সময়ের ৩ বছর পর উপজেলা দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সাধারন জনগন ও ভোটারদের মধ্যে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। সর্বত্রই এখন একই আলোচনা, কে হবে জেলার গুরুত্বপূর্ণ দৌলতদিয়ার নতুন অভিভাবক?
দৌলতদিয়া ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনিত উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও দৌলতদিয়ার সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল ইসলাম মন্ডল (নৌকা), এবং গোয়ালন্দ উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি সতন্ত্র প্রার্থী আব্দুর রহমান মন্ডল (আনারস) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দীতা করছেন। এবং দেবগ্রাম ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনিত ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ হাফিজুল ইসলাম, এবং উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য সতন্ত্র বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ আতর আলী সরদার (আনারস) ও ঘোড়া প্রতীক নিয়ে আব্দুর মান্নান মোল্লা প্রতিদ্বন্দীতা করছেন।

নদী ভাঙ্গনে দিশেহারা ভাঙ্গন কবলিত এ দুই ইউপির বাসিন্দারা চান নদী ভাঙ্গন রোধে যিনি কাজ করবেন এবং অসহায় জনগনের পাশে সুখে দুখে সব সময় থাকবেন তাকেই জনগন ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন। তবে সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট অনুষ্ঠিত হলে ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে গিয়ে তাদের পচ্ছন্দের প্রার্থীকে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

জেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানাগেছে, দৌলতদিয়া ইউপিতে মোট ভোটার সংখ্যা ২৫ হাজার ২৮৩ জন এবং দেবগ্রাম ইউপিতে ১১ হাজার ১০০ জন।

গোয়ালন্দ ৪ ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত উপজেলার মধ্যে ২০১৬ সালে ২৩ এপ্রিল ছোটভাকলা ও উজানচর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সময় অন্য দুই ইউনিয়ন দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম নির্বাচন হবার কথা ছিল। কিন্তু পদ্মা নদীর ভাঙ্গনের কারণে দুই ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডের সীমানা জটিলতা দেখা দেয়। সীমানা জটিলতা সমস্যা সমাধান না হওয়ায় ওই সময় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। বর্তমানে সীমানা জটিলতার সমস্যা সমাধান হওয়ায় ২৫ জুলাই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, দীর্ঘ দিন পর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে গোয়ালন্দ উপজেলার দুটি ইউনিয়নে। এ নির্বাচনের মাধ্যমে তারা নতুন করে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে বিজয়ী করতে চান এবং বিজয়ী প্রার্থী নদী ভাঙ্গন রোধ করাসহ তাদের সুখে দুখে পাশে থাকবে এবং এলাকার উন্নয়নে ভূমিক রাখবে বলে মনে করেন।

প্রচারনা চালাচ্ছেনঃ-দেবগগ্রাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী- মোঃ আতর আলী সরদার (আনারস)।

দেবগ্রাম ইউপির চেয়ারম্যান সতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আতর আলী সরদার জনতার মেইলকে বলেন, তিনি চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে নদী ভাঙ্গনে অসহায় মানুষের জন্য কাজ করেছেন। তাই জনগন আবারো তাকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন। তবে তিনি আওয়ামীলীগের রাজনীতি করলেও দলের মনোনয়ন পাননি। কিন্তু দলমত নির্বিশেষে সবাই তার সাথে আছে এবং তাকে বিজয়ী করতে কাজ করছেন। ২৫ জুলাইয়ের নির্বাচনে তিনিই বিজয়ী হবেন বলে আশাবাদী।

প্রচারনা চালাচ্ছেনঃ-দৌলতদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী- মোঃ নুরুল ইসলাম মন্ডল (নৌকা)।

দৌলতদিয়ার নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল ইসলাম মন্ডল বলেন, তিনি দীর্ঘ দিন দৌলতদিয়া ইউপির চেয়ারম্যান ছিলেন এবং দ্বায়িত্ব পালন করেছেন। দলমত নির্বিশেষে সবার সুখে দুখে পাশে দাঁড়িয়েছেন এবং উন্নয়নে সর্বোচ্চ ভূমিকা রেখেছেন। এছাড়া নদী ভাঙ্গন সমস্যা এ ইউনিয়নের অন্যতম সমস্যা। ২৫ জুলাইয়ের নির্বাচনে তাকেই বিজয়ী করবে।

প্রচারনা চালাচ্ছেনঃ-দৌলতদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী- আব্দুর রহমান মন্ডল (আনারস)।
দৌলতদিয়া ইউনিয়নের আনারস প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল রহমান মন্ডল জনতার মেইলকে জানান, একটি অস্বাভাবিক পরিবেশ থেকে রক্ষা পেতে দৌলতদিয়াবাসী পরিবর্তন চায়। সন্মানীত ভোটারবৃন্দ আমার আনারস প্রতিকে ভোট দেয়ার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে। এ পরিস্থিতিতে জনগণ নিজ নিজ তাগিদে আনারসের জন্য মাঠে নেমেছেন। আশা করি আগামী ২৫ তারিখের নির্বাচনে অপশক্তির বিরুদ্ধে রায় দিয়ে আমাকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়ী করবেন। তিনি জয়ী হলে-মাদক, সন্ত্রাস, নির্মূলসহ বাল্যবিবাহ ইত্যাদি নিয়ন্ত্রনে কাজ করবেন বলেও জানান।

এ বিষয়ে, গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ নিজামউদ্দিন বলেন, নদী ভাঙ্গনের সীমানা জটিলতার কারণে নির্ধারিত সময়ের ৩ বছর পর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউপিতে নির্বাচন হতে যাচ্ছে ২৫ জুলাই। জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও অন্যান্য আইন শৃঙ্খলা রা বাহিনীর সহায়তায় ২৫ জুলাইয়ের নির্বাচন অবাদ সুষ্ঠ ও নিরেপেক্ষ হবে এবং ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে আমরা সে ভাবেই প্রস্তুত আছি।

Comments

comments