আজ : শনিবার, ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ী-১ আসনে কাজী কেরামত ও ২ আসনে জিল্লুল হাকিম বিজয়ী


প্রতিবেদক
জনতার মেইল.ডটকম

প্রকাশিত: ৮:১৪ অপরাহ্ণ ,১ জানুয়ারি, ২০১৯ | আপডেট: ৩:২০ অপরাহ্ণ ,২ জানুয়ারি, ২০১৯
রাজবাড়ী-১ আসনে কাজী কেরামত ও ২ আসনে জিল্লুল হাকিম বিজয়ী

রাজবাড়ী প্রতিনিধি।।রাজবাড়ী-১ আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী এবং রাজবাড়ী-২ আসনে মোঃ জিল্লুল হাকিম সংসদ সদস্য পদে নির্বাচিত হয়েছেন ঘোষণা করে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং অফিসার মোঃ শওকত আলী।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রার্থী ও এজেন্ট এবং মিডিয়া প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে ৩১শে ডিসেম্বর-১৮ সোমবার সকাল ১১.টার দিকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে সরকারী ভাবে বিজয়ী ঘোষনা করে এ গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেন।

রাজবাড়ী জেলায় রয়েছে ৫টি উপজেলা। আসন সংখ্যা ২টি। মোট ভোটারের সংখ্যা ৮ লক্ষ ৯ হাজার ৯৯ জন।মোট ভোটকেন্দ্র ৩১২টি।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজবাড়ী সদর ও গোয়ালন্দ উপজেলা নিয়ে গঠিত রাজবাড়ী-১ আসনটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৩৭২ জন, এবং ভোটকেন্দ্র ১৩৭টি।ভোট গ্রহণের হার ৮১ শতাংশ।এ আসনটিতে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী নৌকা প্রতীক নিয়ে ২ লক্ষ ৩৮ হাজার ৯১৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন এবং তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট বিএনপির প্রার্থী আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ম ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩৩ হাজার ভোট।অন্য প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামী আন্দোলনের এ্যাড. জাহাঙ্গীর আলম জাহিদ খান পাখা প্রতীকে পেয়েছেন ৩ হাজার ৮শ ৩৪ ভোট।এবার দিয়ে আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী ৫ম বারের মত সংসদ সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হলেন।রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং অফিসার মোঃ শওকত আলী বিজয়ী প্রার্থী কাজী কেরামত আলী ও তার নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক আলহাজ্ব কাজী ইরাদত আলীর হাতে ঘোষনা পত্রটি তুলে দেন এবং তাদের কোলাকুলি করেন।পড়ে আওয়ামীলীগসহ অঙ্গ সংগঠন, বিভিন্ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে নব-নির্বাচিত রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্যকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান এবং মিষ্টি বিতরণ করেন।

অপরদিকে, পাংশা, কালুখালী ও বালিয়াকান্দি উপজেলা নিয়ে গঠিত রাজবাড়ী-২ আসনে মোট ভোটার ৪ লাখ ৬২ হাজার ১ শত ৩১ জন, এবং ভোটকেন্দ্র ১৭৫টি।ভোট গ্রহণের হার ৮৯ শতাংশ।

এ আসনে আওয়ামীলীগ মনোনীত জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা জিল্লুল হাকিম ৩ লাখ ৯৮ হাজার ৯শ ৭৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি মনোনীত নাসিরুল হক সাবু ৫ হাজার ৪শ ৭৫ ভোট পেয়েছেন। অন্য প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির এবিএম নুরুল ইসলাম লাঙ্গল প্রতীকে ১ হাজার ৮শ ৩৮ ভোট, ইসলামী আন্দোলনের নুর মোহাম্মদ পাখা প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৭শ ৪৯ ভোট এবং নাজমুল হাসান ছড়ি প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৫ ভোট।

উল্লেখ্য, রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক ও জেলা রির্টানিং কর্মকর্তা মোঃ শওকত আলী নির্বাচন পরিচালনার জন্য রাজবাড়ী জেলায় ৯ শতাধিক পুলিশ সদস্য, ১৩ প্লাটুন সেনা সদস্য, ৬ প্লাটুন বিজিবি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছিল।তার সাথে ছিল পুলিশ প্রশাসনের ৩৮টি মোবাইল টিম ও উপজেলা সহকারী রিটার্নিং অফিসার।ছিল জেলা পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশ, র‌্যাব ও সাদা পোশাকে পুলিশ।জেলায় মোট ভোট কেন্দ্রে ছিল ৩১২ টি।এর মধ্যে ১৮৭ টি কেন্দ্র গুরুত্বপূর্ন (ঝুকিপূর্ন) হিসাবে ঘোষনা করেছিল ও সাধারন কেন্দ্র হিসেবে ছিল ১২৫ টি।

Comments

comments