আজ : বৃহস্পতিবার, ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঢাকা সাভারে দুস্থ্যদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করায় ব্যবসায়ীকে হুমকি!


প্রতিবেদক
জনতার মেইল.ডটকম

প্রকাশিত: ৭:০৩ অপরাহ্ণ ,১২ মে, ২০২০ | আপডেট: ৭:২০ অপরাহ্ণ ,১৩ মে, ২০২০
ঢাকা সাভারে দুস্থ্যদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করায় ব্যবসায়ীকে হুমকি!

সাভার সংবাদদাতা।। করোনা মহামারীতে ঢাকার সাভারে অসহায় দুস্থ্যদের মাঝে ত্রাণ বিতরন ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করায় এক ব্যবসায়ীর কাছে চাঁদা দাবি করে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে এলাকার বখাটে ও চিহ্নিত চাঁদাবাজরা।

এঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে মঙ্গলবার রাতে সাভার মডেল থানায় একটি সাধারন ডায়েরী দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী নাইমুর রহমান খান। ১২/৫/২০২০ তারিখের সাভার মডেল থানার ডায়রী নং-৪০০।

ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীর সাথে কথা বলে জানা যায়, মহামারী করোনা ভাইরাসের কারনে দেশব্যাপী সাধারন ছুটি ঘোষানা করায় সাভারে অনেক কর্মজীবি মানুষ বেকার হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি সমাজের নিন্ম আয়ের মানুষেরাও দীর্ঘ ছুটির কারনে কাজ করতে না পেরে অর্থ সংকটে পড়েছে। তাদের দুঃখ দুর্দশার কথা চিন্তা করেই যখন অসহায়, দুস্থ্য এবং হতদরিদ্রদের মাঝে ত্রাণ বিতরনের পাশাপাশি নগদ অর্থ দিয়ে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেন সাভারের তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের ভরারী নতুন পাড়া এলাকার ব্যবসায়ী নাইমুর রহমান। করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর পর থেকেই মাসব্যাপী তিনি ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রাখায় এরই মধ্যে এলাকার মানুষের কাছে তিনি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন এবং সকলের মুখে মুখে তার নাম ছড়িয়ে পড়েছে। ব্যবসায়ী নাইমুর রহমান শুধু সাভার নয়, তার নিজ গ্রামের বাড়ি ঢাকা জেলার দোহার থানা এলাকায়ও তার সহযোগীতার হাত প্রসারিত করেছেন। সেখানে ত্রাণ বিতরনের পাশাপাশি এলাকাবাসীদের দাবির প্রেক্ষিতে বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা, কবরস্থান, স্কুল-কলেজসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার লোকজনের মাঝে নগদ অর্থ সহায়তাও প্রদান অব্যাহত রাখেন।

এ ঘটনায় ঈর্ষান্ধিত হয়ে ওই ব্যবসায়ীর কাছে বিভিন্ন সময়ে চাঁদা দাবি করেন দোহার এলাকার চিহ্নিত চাঁদাবাজ ও বখাটেরা। তাদের কথামতো চাঁদা না দিলে ব্যবসায়ী নাইমুর রহমানসহ তার পরিবারের সদস্যদের প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেয় বখাটেরা। বিষয়টি নিয়ে ১২/৫/২০২০ ইং তারিখ মঙ্গলবার রাতে সাভার মডেল থানায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে একটি সাধারন ডায়েরী দায়ের করেন ব্যবসায়ী নাইমুর রহমান খান।সাভার মডেল থানার ডায়রী নং-৪০০।  ডাইরীতে উল্লেখিত হুমকি দাতারা হলো- ঢাকা জেলার দোহার থানার শিলাকোঠা গ্রামের সামছুর ছেলে পিন্টু মোল্লা (৩০), এরিয়ান ইউসুফ (২৮) এবং তাদের অজ্ঞাতনামা সহযোগীরা।

ব্যবসায়ী নাইমুর রহমান এ প্রতিবেদককে বলেন- কোন কিছুর আশায় নয়, আমি শুধু মাত্র নিজের মানবিকতার কারনে অসহায় ও সাধারন মানুষের পাশে দাড়িয়েছিলাম এবং সাধ্যমতো সহযোগীতা করেছি। কিন্তু নিজের এলাকায় ত্রাণ কার্যক্রম চালানোয় কিছু লোক আমাকে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ মনে করে বিভিন্ন সময়ে হুমকি ধামকি প্রদান করে আসছে। এ অবস্থায় গরীব ও দুস্থ্যদের সহযোগীতার করার ইচ্ছা থাকলেও আমি নিজের ও পরিবারের সদস্যদের জীবনের কথা চিন্তা করে পিছিয়ে এসেছি।

এছাড়া বিষয়টি নিয়ে আমি সাভার থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেছি। যদি প্রশাসন এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ রাজনৈতিক নেতারা আমাকে নিরাপত্তা প্রদান করেন এবং ত্রাণ বিতরনে সহযোগীতা করেন তাহলে আমি যতদিন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের প্রদুর্ভাব থাকবে ততোদিন পর্যন্ত অসহায় ও দুস্থ্যদের পাশে থেকে সহযোগীতা করতে চাই।

Comments

comments