আজ : বুধবার, ১২ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে ৬ মাসের শিশু পুত্রকে বিক্রি করল মাদকাসক্ত পিতা


প্রতিবেদক
জনতার মেইল.ডটকম

প্রকাশিত: ৩:০৩ অপরাহ্ণ ,৭ মে, ২০২০ | আপডেট: ১০:২৬ অপরাহ্ণ ,৭ মে, ২০২০
গোয়ালন্দে ৬ মাসের শিশু পুত্রকে বিক্রি করল মাদকাসক্ত পিতা

গোয়ালন্দ প্রতিনিধি।। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে ৬ মাস বয়সী শিশু পুত্রকে বিক্রি করেছে মাদকাসক্ত পিতা বিল্লাল হোসেন। তবে অভিযোগ পেয়ে ৬ মে-২০২০ বুধবার দুপুরে শিশুটিকে উদ্ধার করে গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভুমি) আব্দুল্লাহ আল মামুন।
এলাকাবাসীসূত্রে জানাজায়- গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ১নং ওয়ার্ডের শাহাদৎ মেম্বার পাড়া গ্রামের শুকুর আলীর মেয়ে জেসমিন আক্তারের বিয়ে হয় স্থানীয় হাকিম আলী প্রামানিকের ছেলে বিল্লাল হোসেনের সাথে। প্রায় ৬ মাস আগে একটি পুত্র সন্তান জন্ম দিয়ে মারা যায় মা জেসমিন আক্তার। শিশু পুত্রটির স্থান হয় নানী সাহিদা বেগমের কাছে। এ অবস্থায় গত সোমবার দুপুরে সুযোগ বুঝে নানীর চোখের আড়ালে শিশু পুত্রকে চুরি করে বাবা বিল্লাল হোসেন। এসময় বিভিন্ন স্থানে খোঁজ করতে করতে শিশুটির নানী ও মামারা জানতে পারে গোয়ালন্দ পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের হাউলি কেউটিল গ্রামের আক্কাছ আলী খানের কাছে শিশুটিকে বিক্রি করে দিয়েছে তার মাদকাসক্ত পিতা।এ বিষয়ে তারা গোয়ালন্দ সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুনের কাছে অভিযোগ করলে তিনি বুধবার দুপুরে শিশুটিকে আক্কাছ আলী খানের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে শিশুটির নানীর কাছে তুলে দেন।
শিশুটির নানী সাহিদা বেগম জানান, আমার মেয়ে বেঁচে নেই। কিন্তু তার স্মৃতি হিসেবে তার পুত্র সন্তানকে কোলে নিয়ে মেয়ের শোক কিছুটা হলেও ভূলে থাকি। মাদকাসক্ত ছেলের সাথে বিয়ে হওয়ায় আমার মেয়ের জীবনটা শেষ হয়ে গেছে।

আক্কাছ আলী খান বলেন, ‘আমার কোন সন্তান-সন্ততি নেই। তাই শিশুটির বাবার প্রস্তাবে রাজি হয়ে ২০ হাজার টাকা দিয়ে স্ট্যাম্পে লিখিত ভাবে দত্তক নেই। দত্তক নেয়ার আইন না জানায় আমি বিল্লাল হোসেনের ফাঁদে পা দিয়েছি।’ এখন শিশুর বাবা বিল্লালকে ফোনও বন্ধ করে রেখেছে।

এ বিষয়ে, সহকারী কমিশনার (ভুমি) আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান- দত্তক নেওয়ার জন্যও নির্দিষ্ট কিছু আইন আছে। আইন অনুযায়ী জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আবেদন করতে হবে। ইচ্ছে হলেও কেউ কারো শিশু দত্তক নিতে বা দিতে পারে না। তাই শিশুটিকে উদ্ধার করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Comments

comments