আজ : বৃহস্পতিবার, ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চিঠি লিখে রেখে আত্মহত্যা করলো রাজবাড়ীর এক গৃহবধূ


প্রতিবেদক
জনতার মেইল.ডটকম

প্রকাশিত: ১১:৫৫ পূর্বাহ্ণ ,২৫ নভেম্বর, ২০১৯ | আপডেট: ১:৫৮ অপরাহ্ণ ,২৫ নভেম্বর, ২০১৯
চিঠি লিখে রেখে আত্মহত্যা করলো রাজবাড়ীর এক গৃহবধূ

উজ্জ্বল চক্রবর্ত্তী।। মৃত্যুর আগে চিঠি লিখে রেখে গৃহবধূ জয়া মালী (১৮) ঘরের আড়ার সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

২৪ নভেম্বর-১৯ রোববার বিকালে রাজবাড়ী সদর থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধার করেন। এদিকে পুলিশ, জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয়দের ধারনা জয়ামালী ও তার স্বামী সম্রাটের সাথে পারিবারিক কলহের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে।

জয়ামালীর স্বামী সম্রাট সরকার নতুন বাজার মুরগি ফার্ম বাজারে সেলুনে কাজ করে এবং তারা রাজবাড়ী পৌর ৭ নং ওয়ার্ডের ভবানীপুরের মীর্জা আল মাসুদের ভাড়া বাসায় থাকতেন।

চিঠিতে মৃত্যুর আগে জয়ামালী চিঠিতে যা লিখেন, “আমি নিজের ইচ্ছায় গলায় দড়ি নিয়েছি। আমার মরে যাওয়ার জন্য সম্রাটের কোন দোষ নাই। তাই দয়া করে সম্রাটকে দোষ দিবেন না। দয়া করে সম্রাটকে কেউ কোন ভাবে দোষ দিবেন না। এটা সবার কাছে আমার শেষ চাওয়া”। আরো লিখেছেন, “আমার মরে যাওয়ার কারণ সবার ভাল থাকার জন্য। আমি মরে গেলে কয়েকদিন সবাই কাঁদবে কিন্তু পরে ঠিক হয়ে যাবে। আমি জানি আমার নিয়ে আমার মা অনেক দুশ্চিন্তা করে। তাই আর মায়ের দুশ্চিন্তা করতে হবে না। সত্যি এটাই যে আমার আর বেঁচে থাকার কোন ইচ্ছা নাই। সম্রাট ভাল থেকো আর সবাইও ভাল থেকো। চিঠিতে আরও লিখেন, “বার বার সম্রাট আর আমার ঝগড়া লাগবে আর বার বার সবার দুশ্চিন্তা হবে, তা আমি চাইনা বুঝলা। আমি জানি যে আমার বাড়ীর সবাই চায়, আমি যেন ভাল থাকি। বেঁচে থেকে কাউকে দেখাতে পারবো না, আমি ভাল আছি। তাই তো বাই। হয়তো আমি বাড়ী ফিরে যেতে পারতাম কিন্তু ভাবলাম যে বাড়ি ফিরে এই মুখ সবাইকে দেখাতে আমার লজ্জা লাগবে। আমি পারবো না কাউকে দেখাতে আমার পুড়া মুখ। ইতি জয়া। আই লাভ ইউ সম্রাট।

ভাড়াটিয়া বিলকিস বেগম জানান, আজ সকালে জয়ামালী ও সম্রাটের মধ্যে ঝগড়া হয়, এ সময় সম্রাট জয়ামালীকে কয়েকটা চর থাপ্পর মারে। পরে সম্রাট বাজারে চলে যায়। দুপুরে জয়ামালীর ঘরের দরজা বন্ধ দেখে তারা ডাকাডাকি করে। কিন্তু কোন সারা শব্দ না পেয়ে জানালা দিয়ে দেখেন ঘরের আড়ার সাথে ওড়না দিয়ে ঝুলে আছে জয়ামালী। পড়ে তারা সবাইকে বিষয়টি জানান।
সদর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান রকিবুল হাসান পিয়াল জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে এ ঘটনা ঘটতে পারে। যে ঘরে জয়ামালী গলায় ফাঁস নিয়েছে, সে ঘরের ঘাটের উপর মৃত্যুর বিষয়ে একটি ডায়রীতে লেখা চিঠি পাওয়া গেছে। তবে চিঠিটি যে জয়ামালী লিখেছে, সেটা এখনো নিশ্চিত না।

রাজবাড়ী থানাসূত্রে জানাযায়, সংবাদ পাবার পর ঘটনাস্থলে যেয়ে লাশের সুরহাতাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে ধারনা করছেন পারিবারিক কলহের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে। লাশের সাথে ওই ঘর থেকে একটি ডায়রীর কয়েক পৃষ্ঠায় মৃত্যুর বিষয়ে চিঠি আকারে লেখা পাওয়া গেছে। তবে এ লেখা যে জয়ামালীর সেটা এখনো নিশ্চিত না। তার অন্য কোন লেখা থাকলে তার সাথে মিলিয়ে দেখলে বুঝা যাবে। ডায়রীতে কে লিখেছে।

Comments

comments