আজ : রবিবার, ২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে করোনা শনাক্ত-৫; পুরো জেলা লকডাউন ১০ দিন


প্রতিবেদক
জনতার মেইল.ডটকম

প্রকাশিত: ৩:৪৯ অপরাহ্ণ ,১১ এপ্রিল, ২০২০ | আপডেট: ৭:৩০ অপরাহ্ণ ,১২ এপ্রিল, ২০২০
রাজবাড়ীতে করোনা শনাক্ত-৫; পুরো জেলা লকডাউন ১০ দিন

রাজবাড়ী প্রতিনিধি।। রাজবাড়ীতে ৫ জনের শরীরে করনাভাইরাস আসক্ত হওয়ায় পুরো জেলাকে লকডাউন করা হয়েছে। ১১ এপ্রিল-২০২০ শনিবার বেলা সাড়ে ৩.টার দিকে এক গণবিজ্ঞপ্তিতে এ ঘোষণা দেন রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম। রাজবাড়ী করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম স্বাক্ষরিত গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, করোনা সংক্রমণ রোধে জেলা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রাজবাড়ীকে লকডাউন করা হয়েছে। আগামী ১০ দিন জাতীয় ও আঞ্চলিক সড়ক-মহাসড়ক, নৌপথে অন্য কোনও জেলা থেকে কেউ রাজবাড়ী প্রবেশ এবং বের হতে পারবে না। সব ধরনের গণপরিবহন ও জনসমাগম বন্ধ থাকবে। তবে জরুরি সেবা ও সরবরাহ লকডাউনের আওতার বাইরে থাকবে।

করোনাভাইরাস সন্দেহে রাজবাড়ীর ৫টি উপজেলা থেকে ৩০ জনের নমুনা সংগ্রহ করে বৃহস্পতিবার ঢাকায় আইইডিসিআর পাঠায় স্বাস্থ্য বিভাগ। ১১ এপ্রিল-২০২০ শনিবার সকালে রিপোর্ট আসে সিভিল সার্জনের হাতে। যার মধ্যে ২৫ জনই নেগেটিভ আর কিন্তু বাকি ৫ জনের (পুরুষ-৪ ও নারী-১) শরীরে করোনার পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে।

পজেটিভ রোগীদের মধ্যে- জেলা শহরের বিনোদপুরের ২, বাণিবহের ১, চন্দনীর ডাউকির ১ জন। ১ জনের বাড়ী মধুখালীতে। তিনি বসন্তপুরের জামাতার বাড়ীতে বেড়াতে আসার পর অসুস্থ হন এবং সেখানেই তিনি এখন অবস্থান করছেন।
রাজবাড়ীর সিভিল সার্জন ডা. মোঃ নুরুল ইসলাম জানান- করোনায় আক্রান্তদের নিজ নিজ বাড়ীতে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে। এছাড়া রাজবাড়ী জেলা কারাগারের একজন কয়েদিকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের আইসোলেশন কর্ণারে রাখা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, বিশেষ করে নারায়নগঞ্জ এবং ঢাকা থেকে যে সব মানুষ রাজবাড়ীতে এসেছেন এবং এখন খানিকটা অসুস্থ্য রোধ করছেন, তাদেরকে লাজ-লজ্জা, স্বংশয় কিংবা দ্বিধায় না থেকে স্বজন এবং প্রতিবেশিদের বাঁচাতে দ্রুততার সাথে স্ব স্ব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে নমুনা প্রদান করার।
সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সাইদুজ্জামান খান জানান- করোনা প্রতিরোধ কমিটির জরুরী টেলিসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম পুরো জেলাকে আগামী দশ দিনের জন্য লকডাউন ঘোষনা করেছেন।

Comments

comments