আজ : বৃহস্পতিবার, ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়ায় ট্রলার ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ জেলের লাশ উদ্ধার


প্রতিবেদক
জনতার মেইল.ডটকম

প্রকাশিত: ৪:৫৯ অপরাহ্ণ ,৯ এপ্রিল, ২০১৯ | আপডেট: ১০:০১ অপরাহ্ণ ,১০ এপ্রিল, ২০১৯
দৌলতদিয়ায় ট্রলার ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ জেলের লাশ উদ্ধার

গোয়ালন্দ সংবাদদাতা।। গত ৮ এপ্রিল-১৯ সোমবার বিকেল সাড়ে ৫.টার দিকে পাটুরিয়া ঘাট থেকে যাত্রী ও যানবাহন বোঝাই করে শাপলা-শালুক ফেরিটি সরু চ্যানেল দিয়ে দৌলতদিয়ার ৫নং ফেরি ঘাটের নিকট ভেরার চেষ্টাকালে হঠাৎ মাছ ধরা একটি ট্রলারের ইঞ্জিন বিকল হয়ে শাপলা-শালক ফেরিটির সাথে সজোরে ধাক্কা লেগে ট্রলারটি উল্টে যায়।এসময় ট্রলারে থাকা ৩জন সিটকে পানিতে পড়েন। এর মধ্যে ২জন সাতরে উপরে উঠতে পারলেও ট্ররারের মাঝি ফরিদ হোসেন (৩২) উঠতে পারেননি।

খবর পেয়ে গোয়ালন্দ ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌছায়। তারা স্থানীয় জেলেদের সহযোগিতায় নদীতে জাল ফেলে নিখোঁজ ফরিদ হোসেনকে উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে অবশেষে পরের দিন ৯ এপ্রিল-১৯ মঙ্গলবার বিকেল সোয়া ৪.টার দিকে ৫নং ফেরি ঘাট এলাকা থেকে ডুবন্ত অবস্থায় নিখোঁজ জেলে ফরিদ হোসেনের (৩২) লাশ উদ্ধার করেছেন ডুবুরীরা।

তিনি দৌলতদিয়া ইউনিয়নের বাহির চর সাত্তার মেম্বার পাড়ার ছবেদ শেখের ছেলে।

গোয়ালন্দ ফায়ার সার্ভিস সার্ভিস স্টেশন অফিসার আঃ রহমান জানান, ট্রলার ডুবির খবর পেয়ে আমরা ফায়ার সার্ভিসের ১১ সদস্যের একটি দল স্থানীয় জেলেদের সহযোগিতা নিয়ে নিখোঁজ ফরিদ হোসেনকে উদ্ধারে তৎপরতা শুরু করি। পরে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া থেকে ৩ সদস্যের একটি ডুবুরি দল এসে আমাদের সাথে যোগ দেন। দীর্ঘ সময় চেষ্টার পর মঙ্গলবার বিকেল সোয়া ৪.টার দিকে ডুবুরীরা ৫নং ফেরি ঘাটের প্রায় ১শ গজ বাইরে নদী থেকে ডুবন্ত অবস্থায় ফরিদ হোসেনের লাশ উদ্ধার করেন। আমরা লাশটি গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করেছি।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম জানান, এ ব্যাপারে থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের হবে। পরিবারের পক্ষ থেকে ময়না তদন্ত ছাড়াই লাশ বুঝে নেয়ার জন্য যোগাযোগ করছে। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মহোদয় অনুমতি দিলে আমরা লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করবো। অন্যথায় ময়না তদন্তের জন্য রাজবাড়ীর মর্গে পাঠানো হবে।

Comments

comments